fbpx
হাদিসের পরিভাষা

প্রশ্ন: পিতা-মাতা মারা গেলে মাথা মুন্ডন করার হুকুম কি? এ বিষয়ে আবুদাউদের হা/৪১৯২-এর ব্যাখ্যা জানতে চাই।

উত্তর : হাদীছটি হ’ল, আব্দুল্লাহ বিন জা‘ফর (রাঃ) বলেন, নবী (ছাঃ) জা‘ফরের সন্তানদেরকে
(জা‘ফর -এর শাহাদাতের জন্য) শোক প্রকাশের জন্য তিনদিন সময় দিলেন। অতঃপর তিনি তাদের কাছে এলেন এবং বললেন, আজকের পর থেকে তোমরা আর আমার ভাইয়ের জন্য কান্নাকাটি করবে না। অতঃপর বললেন, আমার ভাইয়ের সন্তানদের আমার কাছে ডেকে আনো। সেমতে আমাদেরকে আনা হ’ল। যেন আমরা কতকগুলি পাখির ছানা। অতঃপর তিনি বললেন, নাপিত ডেকে আনো। অতঃপর নাপিত এসে আমাদের মাথা মুন্ডন করে দিল (আবুদাউদ হা/৪১৯২; আহমাদ হা/১৭৫০; মিশকাত হা/৪৪৬৩, সনদ ছহীহ)

উক্ত হাদীছের ফলে কারো কারো ধারণা পিতা-মাতা মারা গেলে তিনদিন পরে মাথা মুন্ডন করা কর্তব্য। কিন্তু এই ধারণা ভুল। কেননা উক্ত হাদীছের ব্যাখ্যায় বিদ্বানগণ বলেন, জা‘ফর (রাঃ)-এর শিশু সন্তানরা যাতে শোকে নিজেদের দেহ ও চুল কালিমালিপ্ত না করে সেজন্য রাসূল (ছাঃ) তাদের মাথা ন্যাড়া করে দিতে বলেন (উছায়মীন, শারহু রিয়াযিছ ছালেহীন হা/১৬৪০-এর ব্যাখ্যা দ্রষ্টব্য)

তাছাড়া তাদের মা স্বামীর মৃত্যুতে চার মাস দশদিন শোকগ্রস্ত থাকার কারণে হয়ত সন্তানদের চুল পরিষ্কার -পরিচ্ছন্ন রাখতে পারবে না। এই আশঙ্কায় রাসূল (ছাঃ) তাদের মাথা মুন্ডন করে দেন (আউনুল মা‘বুদ ১১/১৬৪; মিরক্বাত ৭/২৮৩৪)

উল্লেখ্য যে, কারো মৃত্যুতে শোকের নিদর্শন হিসাবে মাথা মুন্ডন করা হারাম। যেটা হিন্দুদের মধ্যে চালু আছে। আবু বুরদাহ (রহঃ) বলেন, ছাহাবী আবু মূসা আশ‘আরী (রাঃ) কঠিন রোগে আক্রান্ত হয়ে জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন। তার মাথা তার পরিবারের
এক মহিলার কোলে ছিল। মহিলাটি চিৎকার করে উঠলো। কিন্তু তিনি তাকে থামাতে পারছিলেন না। অতঃপর যখন তাঁর জ্ঞান ফিরল তখন তিনি বললেন, আমি তাদের সাথে সম্পর্ক রাখি না, যাদের থেকে রাসূল (ছাঃ) সম্পর্ক ছিন্ন করেছেন। যে সব নারী (মৃতের শোকে) উচ্চস্বরে কান্নাকাটি করে, মাথার চুল ছিঁড়ে, কাপড় ছিঁড়ে ফেলে, রাসূল (ছাঃ) তাদের থেকে সম্পর্ক ছিন্ন করেছেন (বুখারী হা/১২৯৬; মুসলিম হা/১০৪; আলবানী, আহকামুল জানায়েয ৩০ পৃ.)

সূত্র: মাসিক আত-তাহরীক।

➥ লিংকটি কপি অথবা প্রিন্ট করে শেয়ার করুন:
পুরোটা দেখুন

Mahmud Ibn Shahid Ullah

"যে আল্লাহর দিকে দাওয়াত দেয়, সৎকর্ম করে এবং বলে, আমি একজন মুসলিম, তার কথা অপেক্ষা উত্তম কথা আর কার?" আমি একজন তালিবুল ইলম। আমি নিজেকে ভুলের উর্ধ্বে মনে করি না এবং আমিই হক্ব বাকি সবাই বাতিল এমনও ভাবিনা। অতএব, আমার দ্বারা ভুলত্রুটি হলে নাসীহা প্রদানের জন্যে অনুরোধ রইল। ❛❛যখন দেখবেন বাত্বিল আপনার উপর সন্তুষ্ট, তখন বুঝে নিবেন আপনি ক্রমের হক্ব থেকে বক্রপথে ধবিত হচ্ছেন।❞

এই বিষয়ের সাথে সম্পর্কিত অন্যান্য লিখা

Back to top button