লেনদেন ও ব্যবসা

প্রশ্ন : স্টুডিও-এর ব্যবসা যেমন ছবি তোলা, ছবি প্রিন্ট করা প্রভৃতির ব্যবসা করা যাবে কি?

উত্তর : জীব-জন্তুর ছবি তোলা বা তৈরি করা হারাম এবং এর মাধ্যমে উপার্জন করাও হারাম। যখন জীব-জন্তুর ছবি তোলা হারাম, তখন ছবি নির্মাণ করার পর তা বিক্রয় করে অর্থোপার্জন করাও হারাম। এর দ্বারা উপার্জিত অর্থ ভক্ষণ করে জীবনযাপন করা কোন মুসলিমের জন্য বৈধ নয়। বরং এই ধরনের কর্ম থেকে নিজেকে মুক্ত ও তওবাহ করা অপরিহার্য (ফাতাওয়া আল-লাজনা আদ-দায়িমাহ, ১ম খণ্ড, পৃ. ৭১০; ফৎওয়া নং-৬৪০২)।

রাসূলুল্লাহ (ছাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম) বলেছেন, ‘ক্বিয়ামত দিবসে মানুষের মধ্যে সর্বাধিক কঠিন শাস্তি তাদের হবে, যারা ছবি নির্মাতা’ (ছহীহ বুখারী, হা/৫৯৫০; ছহীহ মুসলিম, হা/২১০৯; মুসনাদ আহমাদ, হা/ ৩৫৫৮)।

তিনি আরো বলেন, ‘নিশ্চয় যারা এ জাতীয় ছবি তৈরি করে, ক্বিয়ামতের দিন তাদের শাস্তি প্রদান করা হবে। তাদের বলা হবে, ‘তোমরা যা তৈরি করেছিলে তাতে প্রাণ সঞ্চার কর’ (ছহীহ বুখারী, হা/৫৯৫১, ৭৫৫৮; ছহীহ মুসলিম, হা/ ২১০৮)।

তবে যে সকল ক্ষেত্রে ছবি তোলা বৈধ শুধু সে সকল উদ্দেশ্যেই যদি স্টুডিও খোলা হয়, তাহলে তা বৈধ হতে পারে। যেমন পাসপোর্ট, ভিসা, ভোটার কার্ড, আইডেন্টিটি কার্ড, লাইসেন্স, ইত্যাদি বিশেষ প্রয়োজনীয় কারণে ছবি তোলা জায়েয। তবে বর্তমান সামাজিক প্রেক্ষাপটে কেবল এসব কাজের জন্যই উক্ত ব্যবসা পরিচালনা করা খুবই কঠিন। অতএব এ ব্যবসা বাদ দিয়ে অন্য কোন হালাল ব্যবসা শুরু করা আপনার জন্য আবশ্যকীয় কর্তব্য।

 

সূত্র: মাসিক আল-ইখলাছ।

➥ লিংকটি কপি অথবা প্রিন্ট করে শেয়ার করুন:
পুরোটা দেখুন

Mahmud Ibn Shahid Ullah

"যে আল্লাহর দিকে দাওয়াত দেয়, সৎকর্ম করে এবং বলে, আমি একজন মুসলিম, তার কথা অপেক্ষা উত্তম কথা আর কার?" আমি একজন তালিবুল ইলম। আমি নিজেকে ভুলের উর্ধ্বে মনে করি না এবং আমিই হক্ব বাকি সবাই বাতিল এমনও ভাবিনা। অতএব, আমার দ্বারা ভুলত্রুটি হলে নাসীহা প্রদানের জন্যে অনুরোধ রইল। ❛❛যখন দেখবেন বাত্বিল আপনার উপর সন্তুষ্ট, তখন বুঝে নিবেন আপনি ক্রমের হক্ব থেকে বক্রপথে ধবিত হচ্ছেন।❞

এই বিষয়ের সাথে সম্পর্কিত অন্যান্য লিখা

Back to top button