তাওহীদপ্রশ্নোত্তরে সহজ তাওহীদ শিক্ষা

৬৭: কবরের উপর ঘর নির্মাণ করার বিধান কি?

 

কবরের উপর ঘর নির্মাণ করা নিকৃষ্ট বিদ‘আত। এর মাধ্যমে দাফনকৃত ব্যক্তির সম্মানের ক্ষেত্রে চরম বাড়াবাড়ি করা হয় এবং এমন কর্মকাণ্ড শির্কের অন্যতম একটি মাধ্যম হিসাবে গণ্য হয়। অতএব, নিকৃষ্ট বিদ‘আত প্রতিরোধ কল্পে এবং শির্কের অন্যতম এই মাধ্যমকে প্রতিহত করতে সম্ভব হলে কবরের উপরে নির্মিত ভবন ভেঙ্গে মাটির সাথে মিশিয়ে দেওয়া ওয়াজিব। তবে এক্ষেত্রে সরকারের অনুমতি এবং সহযোগিতা থাকতে হবে। আবুল হাইয়াজ আসাদী (রাদিয়াল্লাহু ‘আনহু) বলেন, আলী (রাদিয়াল্লাহু ‘আনহু) আমাকে বলেন,

«أَلاَّ أَبْعَثُكَ عَلَى مَا بَعَثَنِى عَلَيْهِ رَسُولُ اللَّهِ -صلى الله عليه وسلم- أَنْ لاَ تَدَعَ تِمْثَالاً إِلاَّ طَمَسْتَهُ وَلاَ قَبْرًا مُشْرِفًا إِلاَّ سَوَّيْتَهُ»  

“রাসূল সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়াসাল্লাম আমাকে যে কাজে পাঠিয়েছিলেন, আমিও কি তোমাকে সেই কাজে পাঠাব না? আর তা হচ্ছে এই যে, কোনো ছবি-মূর্তি পেলে তা ভেঙ্গে চুরমার করে দিবে এবং কোনো উঁচু কবর পেলে তা ভেঙ্গে মাটির সাথে মিশিয়ে দিবে” (মুসলিম)

 

সূত্র: প্রশ্নোত্তরে সহজ তাওহীদ শিক্ষা।
লেখক: আব্দুল আলীম ইবনে কাওসার।

➥ লিংকটি কপি অথবা প্রিন্ট করে শেয়ার করুন:
পুরোটা দেখুন

হাবিব বিন তোফাজ্জল

❝আমি সাক্ষ্য দিচ্ছি আল্লাহ ছাড়া কোনাে সত্য ইলাহ নেই , এবং মুহাম্মাদ সাল্লালাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তার বান্দা ও রাসূল।❞ আমি একজন তালিবুল ইলম ও ফ্রিল্যান্সার। আমি নিজেকে ভুলের উর্ধে মনে করি না এবং আমিই হ্বক বাকি সবাই বাতিল তেমনটাও মনে করিনা। অতএব, ভুলত্রুটি হলে নাসীহা প্রদানের জন্যে অনুরোধ রইল। ― আমাদের পূর্বের সালাফেরা যেসকল বিষয়ে বাড়াবাড়ি ও ছাড়াছাড়ি করেছেন সেসকল বিষয়ে আমি তাদের অনুসরণকারী।

এই বিষয়ের সাথে সম্পর্কিত অন্যান্য লিখা

Back to top button